জাতীয় কংগ্রেসের উৎপত্তি, এতে হিউমের ভূমিকা | Origin of the National Congress, Hume’s role in it

ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের উৎপত্তি, এতে অ্যালান অক্টাভিয়ান হিউমের ভূমিকা | Modern Indian History

Discuss the genesis of Indian National Congress, adding a note on A.O. Hume’s role in it. | History Notes

উত্তর:-

সূচনা:

উনিশ শতকের শেষার্ধে ভারতের রাজনৈতিক কারণের চূড়ান্ত ফলশ্রুতি ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠা (১৮৮৫ খ্রি. ২৮ ডিসেম্বর)। জাতীয় কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠা ভারতীয় জাতীয়তাবাদ ও স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসে এক নবযুগের সূচনা ঘটায়। ড. রমেশচন্দ্র মজুমদারের মতে— ‘A new era in the political life of India began with the foundation of the Indian National Congress towards the very end of the year 1885.’

কংগ্রেস প্রতিষ্ঠার মূল উপাদান :

উনিশ শতকে ভারতে পাশ্চাত্য শিক্ষা প্রসারের ফলে যে জাতীয়তাবাদের উন্মেষ ঘটে তার ফলস্বরূপ ধর্ম ও সংস্কৃতিতে এক নবজাগরণের সূচনা হয়। পাশ্চাত্য শিক্ষার দ্বারা প্রভাবিত হয়ে মধ্যবিত্ত শিক্ষিত সম্প্রদায় ভারতের মুক্তিসংগ্রামে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনে সচেষ্ট হন।

ব্রিটিশের অন্যায় শোষণমূলক ভূমিকায় ভারতবাসী ক্ষুদ্ধ হয়। বিভিন্ন বৈষম্যমূলক নীতিগুলি ব্রিটিশ ভারতীয়দের ওপর চাপিয়ে দেওয়ায় ভারতবাসী তার প্রতিকারের লক্ষ্যে এক সর্বভারতীয় সংগঠন প্রতিষ্ঠার তাগিদ অনুভব করে।

হিউমের জীবনীকার ও কংগ্রেস সভাপতি উইলিয়াম ওয়েডারবার্ন অ্যালান অক্টাভিয়ান হিউম, ‘ফাদার অব দি ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল কংগ্রেস’ গ্রন্থে লিখেছেন ব্রিটিশ কর্মচারীরূপে সিমলায় থাকাকালীন, হিউম স্বরাষ্ট্র দপ্তরের গোপন নথি দেখে উপলব্ধি করেন যে, ভারতবাসী যে-কোনো সময়ে ব্রিটিশের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করতে পারে। তাই ব্রিটিশের স্বাথেই তিনি সেফটি ভালব বা ধ্বংসাত্মক শক্তির প্রতিরোধকরূপে জাতীয় কংগ্রেস প্রতিষ্ঠায় সচেষ্ট হন। এই সেফটি ভালব তত্ত্বই জাতীয় কংগ্রেস প্রতিষ্ঠার মূল উপাদান।

জাতীয় কংগ্রেস প্রতিষ্ঠা সম্পর্কিত বিভিন্ন মত: 

জাতীয় কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠা নিয়ে বিভিন্ন মত রয়েছে—

১) পট্টভি সীতা রামাইয়ার মত: 

জাতীয় কংগ্রেসের অন্যতম সভাপতি ড. পট্টভি সীতারামাইয়া ‘ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের ইতিহাস’ গ্রন্থে এই মত ব্যক্ত করেছেন – ‘It is shrouded in mystery as to who originated the idea of All India Congress’।  সীতারামাইয়া জাতীয় কংগ্রেস প্রতিষ্ঠায় বিভিন্ন কারণ রূপে উল্লেখ করেছেন-

  • দিল্লির দরবারে মহারানি ভিক্টোরিয়ার সম্মানে এক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় (১৮৭৭ খ্রি.)। এই সম্মেলনেই জাতীয় কংগ্রেস প্রতিষ্ঠার পরিকল্পনা গৃহীত হয়।
  • মাদ্রাজে থিওসফিক্যাল সোসাইটির সদস্যরা এক গোপন বৈঠক মিলিত হয়ে (১৮৮৪) খ্রি.) জাতীয় কংগ্রেস প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত নেন।
  • কলকাতায় অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক প্রদর্শনীতে (১৮৮৩ খ্রি.) জাতীয় কংগ্রেসের পরিকল্পনা নেওয়া হয়।

২) অন্যান্য মতবাদ:

  • ড. নন্দ লাল বলেছেন যে, সম্ভাব্য রুশ আক্রমণ প্রতিরোধের লক্ষ্যেই জাতীয় কংগ্রেস প্রতিষ্ঠিত হয়।
  • ড. রমেশচন্দ্র মজুমদার জাতীয় কংগ্রেস প্রতিষ্ঠায় থিওসফিস্টনের অবদানকে মেনে নিয়েছেন।

জাতীয় কংগ্রেস প্রতিষ্ঠায় হিউমের ভূমিকা

১) সেফটি ভাল তত্ত্বের অবতারণা:

হিউম সিমলাতে ভারত সরকরের দায়িত্বপূর্ণ সচিবপদে কর্মরত থাকাকালীন স্বরাষ্ট্র দফতরের বেশকিছু নথিপত্র দেখার সুযোগ পেয়েছিলেন। এই সকল নথিপত্রের রিপোর্টগুলি দেখে তাঁর ধারণা হয় যে, ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে ভারতবর্ষে বেশ বড়ো ধরনের অসন্তোষ আছে। তিনি চেয়েছিলেন ব্রিটিশের বিরুদ্ধে ভারতীয়দের অসন্তোষ যেন নিরাপদ বহিঃপ্রকাশের সুযোগ পায়। তিনি চেয়েছিলেন এই ধ্বংসাত্মক শক্তির প্রতিরোধক রূপে ‘Safety Valve’ এক জাতীয় দল প্রতিষ্ঠা করতে। হিউমের এই সিদ্ধান্তের পরিণতি হল জাতীয় কংগ্রেস।

২)স্নাতকদের একত্রিত করণে :

সেফটি ভাল্ব তত্ত্বের বাস্তব রূপায়ণের জন্য কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতকদের উদ্দেশ্যে হিউম এক ঘোষণা বিধি লেখেন (১৮৮৩ খ্রি., ১ মে)। এই চিঠিতে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের সামাজিক, রাজনৈতিক, মানসিক, নৈতিক উন্নতির জন্য এক জোট হওয়ার কথা বলেন।

৩)বিভিন্ন শাখা সংগঠন প্রতিষ্ঠা:

হিউম ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলের প্রতিনিধিদের নিয়ে এক জাতীয় সম্মেলনের আহ্বান জানান। হিউমের এই আহ্বানে অনুপ্রাণিত হয়ে ইংল্যান্ডের কমন্স সভার আইরিশ সদস্য ও’ডোনেল লন্ডনে বসবাসকারী কিছু ভারতীয় ছাত্রদের নিয়ে ন্যাশানাল রিপ্রেজেন্টেটিভ কমিটি প্রতিষ্ঠা করেন (১৮৮৩ খ্রি.)। হিউম নিজেও প্রতিষ্ঠা করেন ইন্ডিয়ান ন্যাশানাল ইউনিয়ন, যার বিভিন্ন শাখা গড়ে ওঠে ভারতের বড়ো শহরগুলিতে।

৪)হিউম-ডাফরিন ষড়যন্ত্র তত্ত্ব:

সেসময়কার বড়োলাট লর্ড ডাফরিনের সঙ্গে হিউম গোপন ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে জাতীয় কংগ্রেসের জন্ম দিয়েছিলেন বলে মনে করেন ঐতিহাসিক গিরিজা প্রসাদ মুখার্জী ও সি. এফ. অ্যান্ড্রুজ। হিউম ভাইসরয় লর্ড ডাফরিনের সঙ্গে দেখা করে (১৮৮৫ খ্রি. মে), সমাজের প্রথম সারির ভারতীয়দের একজোট করে প্রতিবছর বিভিন্ন সামাজিক সমস্যা নিয়ে আলোচনার প্রস্তাব দেন। এতে ব্রিটিশ শাসন সম্পর্কে ভারতীয়দের মতামত জানার সুযোগ পাওয়া যাবে ভেবে ডাফরিনও হিউমের প্রস্তাবকে স্বাগত জানান। তবে তিনি সামাজিক সমস্যার পরিবর্তে রাজনৈতিক সমস্যা আলোচনার প্রস্তাব রাখলে হিউম তাতে রাজি হন। মার্কসবাদী ঐতিহাসিক রজনী পামদত্তের মতে– হিউম ও ডাফরিনের ষড়যন্ত্রের ফলশ্রুতি হল কংগ্রেস।

A.O. Hume এর সমালোচনা:

জাতীয় কংগ্রেস প্রতিষ্ঠায় হিউমের অবদান বিভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে সমালোচিত হয়েছে—

  • অ্যালান হিউম ছিলেন রাজস্ব, কৃষি ও বাণিজ্য দফতরের সচিব। তাই তাঁর পক্ষে স্বরাষ্ট্র দফতরের নথি দেখে জাতীয় কংগ্রেস প্রতিষ্ঠার পরিকল্পনা এক অবাস্তব ব্যাপার।
  • হিউম সরকারি কর্মচারীরূপে সিমলায় কর্মরত তাই তাঁর পক্ষে দিল্লিতে এসে সরকারি নথিপত্র দেখার সুযোগ ছিল না।
  • ভারতবাসীর বিক্ষোভকে প্রশমনের লক্ষ্য নিয়ে হিউম যদি জাতীয় কংগ্রেস প্রতিষ্ঠা করে থাকেন, তাহলে তাঁর অবসর গ্রহণের পর এত দেরিতে তিনি কপ্রেস প্রতিষ্ঠা করলেন এ বিষয়েও সন্দেহের অবকাশ থেকে যায়।

মন্তব্য:

জাতীয় কংগ্রেসের প্রকৃত প্রতিষ্ঠাতা কে এ বিষয়ে ঐতিহাসিক, সমালোচক ও গবেষকদের মধ্যে যথেষ্ট মতভেদ রয়েছে। তবে অধিকাংশের মতে জাতীয় কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন হিউম। ঐতিহাসিক নিমাইসাধন বসুর মতে——‘The credit of organizing the Indian National Congress belongs to Allan Octavian Hume’.

Read Offline – জাতীয় কংগ্রেসের উৎপত্তি, এতে হিউমের ভূমিকা- pdf

তথ্যসুত্রঃ-

১) আধুনিক ভারতের ইতিহাস – বিপান চন্দ্র
২) পলাশী থেকে পার্টিশন – শেখর বন্দ্যোপাধ্যায়
৩) স্বদেশ সভ্যতা ও বিশ্ব – জীবন মুখোপাধ্যায়
৪) স্বদেশ পরিচয় – জীবন মুখোপাধ্যায়
৫) ইতিহাস শিক্ষক – হাজরা ও দত্ত
৬) স্বদেশ  ও বিশ্ব – শান্তনু মিস্ত্রী

Leave a Comment